শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪ । ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শেখ হাসিনাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী চান এফবিসিসিআই সভাপতি

অনলাইন ডেস্ক »

নিউজটি শেয়ার করুন

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায় বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন।

আজ শনিবার (১৫ জুলাই) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এফবিসিসিআই আয়োজিত ‘স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে ব্যবসায়ী সম্মেলন’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘আপনি যেভাবে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন সেই অবস্থাকে ধরে রাখার জন্য, বিদ্যুৎ-গ্যাসহ যেসব সমস্যা রয়েছে ব্যবসায়ীদের সামনে সেগুলোকে আপনার মাধ্যমে সমাধান চাই। এ জন্য আমরা সব ব্যবসায়ী ঐকমত্য হয়েছি, আপনাকে আবারও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী থাকতে হবে ব্যবসায়ীদের জন্য।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, এফবিসিসিআই’র সাবেক সভাপতি এ কে আজাদসহ সারাদেশের শীর্ষ পর্যায়ের ব্যবসায়ী নেতারাও উপস্থিত রয়েছেন।

এফবিসিসিআইর সব উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে সরকারকে সঙ্গে পাওয়া গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যখনই এফবিসিসিআই থেকে আহ্বান করা হয়েছে তখনই আপনি সাড়া দিয়েছেন। এ জন্য আমরা গর্বিত ও কৃতজ্ঞ। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে এফবিসিসিআই নিরলসভাবে কাজ করবে। এতে এফবিসিসিআই’র স্লোগান হবে ‘স্মার্ট এফবিসিসিআই ফর স্মার্ট অর্থনীতি’।

এ সময় বৈশ্বিক পরিস্থিতি ও ডলার সংকটে বিপর্যস্ত বন্ধ শিল্পকারখাগুলো চালু করতে জরুরিভিত্তিতে বিশেষ তহবিল গঠনের আহ্বান জানান এফবিসিসিআই সভাপতি। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের ছায়াসঙ্গী হয়ে ব্যবসায়ীরা দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ন্যায্য বাজার ব্যবস্থা, উৎপাদনের বিভিন্ন উপকরণের অবাধ প্রবাহ, প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশ তৈরি করার জন্য সবাইকে নিবেদিত হয়ে কাজ করতে হবে।

ব্যবসা-বাণিজ্যকে স্মার্টলি পরিচালনার জন্য জাপানের জেট্রো, কোরিয়ার কুট্রা, চীনের সিসিপিআইটি এবং সম্প্রতি ভিয়েতনামের ট্রেড সেন্টারের মতো বাংলাদেশে একক পেশাজীবীভিত্তিক বিনিয়োগ-ব্যবসাবান্ধব সংস্থা স্থাপনের দাবি জানান তিনি।

বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসায়িক দেশগুলোতে ফোকাল পারসন হিসেবে একজন করে ব্যবসায়ী নিয়োগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের পর বাংলাদেশের সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ আসবে। উন্নত দেশগুলো থেকে দেওয়া প্রায় সব বাণিজ্য সুবিধা প্রত্যাহার হবে। তখন রপ্তানি বাজারে টিকে থাকতে হলে পণ্য উৎপাদন খরচ কমানো জরুরি হয়ে পড়বে। সেজন্য ডব্লিউটিওর কমপ্লায়েন্সের সাথে সমন্বয় করে ভ্যাট-ট্যাপ এবং ইউটিলিটির চার্জ সমন্বয় করা, কারিগরি ও অভ্যন্তরীণ নীতি সহায়তা জরুরি।

অনুষ্ঠানে বেশ কয়েটি দাবি তুলে ধরে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে আমদানি নির্ভরতা কমাতে হবে। অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে গ্যাস ও কয়লা উত্তোলন এবং বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াতে হবে। এসএমই খাতে সর্বনিম্ন সুদহার রাখতে হবে। বিদেশি প্রকল্পে দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্পৃক্ত করার মাধ্যমে ডলারের সাশ্রয় করা যেতে পারে। বন্দর ও লজিস্টিসক সহায়তার উন্নতি করতে হবে।

করের বোঝা কমানোর জন্য করজাল বাড়ানো দরকার। ব্যবসাবান্ধব কর ব্যবস্থা বাস্তবায়নে এনবিআরের অতিরিক্ত ক্ষমতা কমানো দরকার। তবে তাদের সক্ষমতা বাড়াতে হবে। এনবিআরের কর্মকর্তাদের জবাবদিহিতার আওতায় আনতে হবে। এতে ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে স্মার্টভাবে কর আদায় অনেক বেশি কার্যকর হবে বলে মনে করেন তিনি।

সংসদ সদস্য মোরশেদ আলম, বিজেএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান, সংসদ সদস্য সেলিমা আহমেদ, ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফআইসিসিআই) সভাপতি নাসের এজাজ বিজয়, এইচএসবিসি বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহবুব উর রহমান, মেঘনা গ্রুপের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস এসোসিয়েশন (বিটিএমএ) সভাপতি মোহমাদ আলী, ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালসের চেয়ারম্যান আব্দুল মোক্তাদির প্রমুখ।

আপনার মন্তব্যটি লিখুন
শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »